ভিটে বাড়ির আঙিনায়

ভিটে বাড়ির আঙিনায়

 

ভিটে বাড়ির আঙিনায় ওইখানে পড়ে আছে আমার হৃদয় ওই মাঠে ওই বনভূমি এবং ওই ভিটে বাড়ির আঙিনায় একখানি মেঠোপথ লোকালয় ছাড়ি আম গাছ জাম গাছ বুনো ঝোপ পেরিয়ে রণ বরশি কার ছায়ায় ছায়ায় পৌঁছায় এসে গায়ের মাথায় এক উঁচু বনভূমিতে উত্তর ঢালে ক্রমশ ঢালে নেমে ফসলের খোলা মাঠ আকাশের নিচে যেতে যেতে অসীম সখ্যতা মিলে যায় বিলের ভেতর মাথায় বিরাজে এক বিষণ্ন নীরবতা জনশূন্য তায় গায়ের শ্যামল বনানী যেথা হয়ে গেছে শেষ সেথায় বসে নিঃশেষ দৃষ্টি মেলা যায় দিগন্তের পানে দূর নীলিমায় যেথায় বসে ধু ধু মাঠের উদম উদাম হাওয়ায় শুধু আকাশ বিনিময় হয় নির্জনতার সাথে সংগোপনে সেইখানে ওই রাখাল বালকের সাথে কাটাতে চাই দুরন্ত সময় হেমন্তের পড়ন্ত বেলায় ধান কাটা হয়ে গেলে শেষ শূন্যতা বুকে নিয়ে জড়িয়ে থাকা বিরান বিষন্ন মাঠের কান্নায় নিরেট মুখ বাণী অনুখন না জানি কোন বেদনার করুন অতি জানায় অথবা অলস দুপুরে অখন্ড অবসরে কোন প্রয়োজনে প্রিয়জনের অনুপস্থিতি অনুপস্থিতি মায়া হাতছানি দেয় নীরবে প্রাচীন আম গাছের মায়াময় ঘন ছায়ায় দুপুরে ও রাতে উঠানে মাদুর পেতে জলসা জমে ওঠে গোধূলি বেলায় সূর্য যখন দিগন্তে পশ্চিম ভালে স্থির গরু গুলো পাটে থেকে ফিরে আসে বিলের ভেতর দিয়ে ঘরের উঠানে সেই গরুর পালের স বেগ বদ চারণ না গরুতে হারাতে তেজ দিনতো লড়াই অবাক আনন্দ দেয় রাখাল বালক কে রে সেই রাখাল বালক আজও সেই মাঠে সেই উদোম শরীরে একান্ত উৎসবে আমাকে ওইখানে যেতে হবে ওই ভিটে বাড়ির আঙিনায়